নেইমার ট্রান্সফার নাটক ও সম্ভাবনা

এবারের ট্রান্সফার উইন্ডোর সবচেয়ে গরম টপিক নেইমার। নেইমারের ক্লাব ছাড়ার সম্ভাবনা নিয়ে আলোচনায় সরগরম প্রায় প্রতিটি গণমাধ্যম থেকে শুরু করে চায়ের স্টলগুলো পর্যন্ত। রেকর্ড ট্রান্সফার ফি’তে পিএসজিতে যোগ দিচ্ছেন এমন খবর ছড়িয়েছে গোটা ফুটবল বিশ্বে !

আসুন দেখে নিই নেইমারের ট্রান্সফার নাটকের ধারাবাহিক প্রবাহ…

জুলাই ১৮, ২০১৭

কিছু ব্রাজিলিয়ান মিডিয়া রিপোর্ট করল নেইমার তার ব্রাজিলিয়ান বন্ধুদের সাথে যুক্ত হবার জন্য প্যারিস সেন্ট জার্মেইর অফারে সায় দিয়েছেন। ওই দিনই ফরাসি মিডিয়া লে’কিপ ও লে’প্যারিসিয়াঁ গুজবটি কনফার্ম করলো।

জুলাই ১৮, ২০১৭

প্রেস কনফারেন্সে বার্সা ভাইস প্রেসিডেট জর্দি মেস্ত্রে বলেন, “আমি ২০০% গ্যারান্টি দিতে পারি নেইমার কোথাও যাচ্ছেন না।”

জুলাই ১৯, ২০১৭

নেইমারের কিছু কাছের বন্ধুরা ব্রাজিলিয়ান পত্রিকা Globe কে জানালো নেইমার বার্সা ছেড়ে দিচ্ছে।

জুলাই ২১, ২০১৭

বার্সেলোনার প্রধান রেডিও মাধ্যম Cataluniya Radio কনফার্ম করল ২২২ মিলিয়ন বাই আউট ক্লজ এর বিনিময়ে ৪ বছরের চুক্তিতে নেইমার পিএসজি যাচ্ছে।

জুলাই ২৩, ২০১৭

মেসি সুয়ারেজ নেইমারের সাথে আলোচনা করে তাকে বার্সায় থেকে যেতে রাজি করালেন।

জুলাই ২৪, ২০১৭

টুইটারে নেইমারের সাথে ছবি পোস্ট করে পিকে ক্যাপশন দিল “সে থাকছে” ! মূলত এই পোস্ট এই ট্রান্সফার নাটকের টার্নিং পয়েন্ট ছিল। বার্সা ফ্যানরা স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেছিল আর হতাশ হয়েছিল প্যারিসিয়াঁরা।

জুলাই ২৫, ২০১৭

নেইমারকে সন্তুষ্ট করার জন্য লিভারপুল এর তার ব্রাজিলীয় বন্ধু কৌতিনহোর জন্য ৯০ মিলিয়ন বিড করল বার্সা।

জুলাই ২৬, ২০১৭

প্রেস কনফারেন্সে পিকে “টুইটটা আমার নিজস্ব মতামত ছিলো। নেইমার থাকবে নাকি চলে যাবে সেটা সম্পূর্ন তার সিদ্ধান্ত “! আবারো নাটকে টুইস্ট। পিকের এই বক্তব্য আবার ট্রান্সফার সম্ভাবনা জাগিয়ে তুললো।

জুলাই ২৭, ২০১৭

বার্সা কোচ ভালভার্দে “নেইমার আমাদের সাথে খুব খুশি। ও আমাদের সাথেই থাকবে।”

জুলাই ২৮, ২০১৭

ট্রেনিং সেশনে সতীর্থ সেমেডুর সাথে হাতাহাতি করে ট্রেনিং গ্রাউন্ড থেকে নেইমারের প্রস্থান।

উপরোক্ত ঘটনাপ্রবাহ ও নেইমারের এমন বিরূপ আচরণ নাটকের ক্লাইম্যাক্সে বার্সা সমর্থকদের জন্য যে ট্রাজেডির ইঙ্গিত দিচ্ছে তা বলার অপেক্ষা রাখে না।যদিও নেইমারের এখনও চুপ রয়েছেন। ট্রেনিং এর পর নিজের বুটের প্রমোশনাল ইভেন্টেও তিনি ট্রান্সফার বা বাজে আচরণ নিয়ে মুখ খুলেননি।

নেইমারকে সাইন করানো কি আদৌ সম্ভব?

ইউরোপিয়ান ফুটবল ভক্তরা অনেকেই FPP এর ব্যাপারে জানেন। কোনো ক্লাব নিজেদের স্কোয়াড সাজানোর জন্য এবং ট্রান্সফার উইন্ডোতে খরচ করার জন্য উয়েফা একটা নির্দিষ্ট সীমা বেধে দেয়। পিএসজির এবারের FPP ১৮০ মিলিয়ন। কিন্তু নেইমারের বাই আউট ক্লজ ২২২ মিলিয়ন + তার বাবার বোনাস ৪০ মিলিয়ন। তাহলে তো পিএসজি সীমা ছাড়িয়ে যাচ্ছে। আর এদিকে লা লীগা প্রেসিডেন্ট হ্যাবিয়ের তেবাস উয়েফা কে অভিযোগ জানিয়েছেন যে পিএসজি তাদের FPP সীমা লঙ্ঘন করে লা লীগার একজন অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড় কিনতে চাইছে।

তাহলে এখন কি হবে? ডিল কি সম্পন্ন হওয়া সম্ভব?

হুম, সম্ভব। সিস্টেমের মাধ্যমে সম্ভব। এক্ষেত্রে বাই আউট ক্লজ এক ক্লাব অন্য ক্লাবকে পরিশোধ করবে না। পিএসজি নেইমারকে ২২২ মিলিয়ন দিয়ে তার বাই আউট ক্লজ পে করাবে।তারপর নেইমার হয়ে যাবে ফ্রি সাইনিং অপশন। তখন পিএসজি ফ্রি তে তাকে কিনে ফেলবে। এখন অনেকেই ভাবছেন ২২২ মিলিয়ন তো পিএসজি দিচ্ছে। তাহলে তাদের খরচের খাতায় তো ২২২ মিলিয়ন ডেবিট হচ্ছে যা FPP এর বাইরে।

আসল বিষয় হচ্ছে টাকা পিএসজি দিবে কিন্তু তাদের নামে দিবেনা। পিএসজির স্পন্সর কাতার টুরিজম কোম্পানি নেইমারকে তাদের ব্রান্ড এম্বাসেডর বানাবে যার বিনিময়ে নেইমার ওই টাকাগুলো পেয়ে যাবে। সেটা সে বার্সা ম্যানেজমেন্টকে পরিশোধ করে নিজেকে মুক্ত করবে। তারপর পিএসজি তাকে ফ্রি তে সাইন করাবে। এভাবে পিএসজির খরচের খাতায় ২২২ মিলিয়ন উঠবে না। চাইলে তারা এই নিয়মে সানচেজকেও সাইন করাতে পারে।

আর উয়েফা যদি এসবের জন্য ১৫-২০ মিলিয়ন জরিমানাও করে তাতে পিএসজির কিছুই যায় আসবে না। তবে ২-৩ বছরের জন্য ট্রান্সফার ব্যান খেতে পারে। তবে এই স্কোয়াড দিয়ে তারা ৪ বছর ভালভাবেই চলতে পারবে।

এখন শুধু ক্লাইম্যাক্সের অপেক্ষা…

Comments

comments