মাশরাফি কখনো বাজিতে হারে না !

মাশরাফি সাব্বির

প্রথমেই নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের বাংলাদেশি টপ অর্ডার ব্যাটসম্যানদের পরিসংখ্যানে চলুন একটু চোখ বুলিয়ে নিই…

  1. তামিম ইকবালঃ ৫ + ৫ + 0 = ১০ রান
  2. লিটন দাসঃ ১ + ১ + ১ = ৩ রান
  3. সৌম্য সরকারঃ ৩০ + ২২ + ০ = ৫২ রান
  4. মুশফিকুর রহিমঃ ৫ + ১৪ + ১৭ = ৩৬ রান
  5. মাহমুদুল্লাহ রিয়াদঃ ১৩ + ৭ + ১৬ = ৩৬ রান

উপরের পরিসংখ্যানের দিকে তাকিয়েই বোঝা যায়, বাংলাদেশি ব্যাটসম্যানদের দুরবস্থা। প্রতিটি ম্যাচেই তাসের ঘরের মত ভেঙে পড়েছে ব্যাটিং লাইনআপ।

আজকে শেষ ওয়ানডেতে যখন বাংলাদেশ ২ রানে ৩ উইকেট এবং ৪০ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে একশো রান পেরোনোর আগেই ইনিংস শেষ হওয়ার ভয় চেপে বসেছিলো, ঠিক তখনই স্রোতের বিপরীতে দাঁড়িয়ে বুক চিতিয়ে লড়াই করে গেছেন বাংলাদেশের “ব্যাড বয়” খ্যাত সাব্বির রহমান !

অথচ এই সাব্বির রহমানকে স্কোয়াডে অন্তরভুক্তি নিয়ে কম জল ঘোলা হয়নি। নিষিদ্ধ সাব্বিরকে স্কোয়াডে নেওয়ার পরই সমালোচনা আর কুরুচিপূর্ণ ট্রলে ভেসে গেছিলো বাংলাদেশের দর্শকেরা।

ম্যানেজমেন্ট, নির্বাচক, ডিসিপ্লিন কমিটি ও বোর্ড প্রেসিডেন্ট সাব্বিরের দলে অন্তর্ভুক্তি নিয়ে বিতর্কিত এবং দায় এড়ানোর কথাবার্তা বলতে থাকে। প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু তো সরাসরিই বলে দেন, “মাশরাফির জোরাজুরিতেই সাব্বিরকে স্কোয়াডে নেওয়া হয়েছে”।

আর এতেই সাংবাদিকরা মাশরাফিকে নানান প্রশ্নে চেপে ধরে। যদিও মাশরাফি তাঁর ব্যাখ্যা দেন যে, তিনি শুধু তাঁর মতামত দিয়েছেন, এবং কেনো সাব্বিরকে সাত নম্বরে প্রয়োজন, সেটাও ব্যাখ্যা করেছেন। এতেও দর্শকরা ক্ষ্যান্ত না হয়ে সাব্বিরের সাথে মাশরাফিকে জড়িয়ে সমালোচনা এবং ট্রল চালিয়ে যেতে থাকে। অনেকে তো আরও একধাপ এগিয়ে বলতে শুরু করে, মাশরাফি এমপি হয়ে ক্ষমতা দেখাচ্ছে ! সমালোচনা এবং বিতর্ক বাড়তেই থাকে…

অবস্থা যখন এরকম, ক্রিকেট বোর্ডের কেউই সাব্বিরের দলে ঢোকার দায় নিতে নারাজ। সবাই যখন যে যার মত করে মাশরাফিকে দোষারোপ করছে, ঠিক তখনই বাধ্য হয়ে মাশরাফি বলেন, “ঠিক আছে, কেউ যখন দায় নিচ্ছেন না, দায় আমিই নিলাম” !

আমরা যারা বাংলাদেশ ক্রিকেটের সত্যিকারের দর্শক, তারা ঠিকই বুঝে গিয়েছিলাম, মাশরাফি সাব্বিরকে নিয়ে বাজি ধরছে। মাশরাফিই ক্রিকেটের বিষয়গুলো সবচেয়ে ভালো পড়তে পারেন। নানান সময়ে মাশরাফি এরকম বাজি ধরেছিলেন। দেখা যায়, প্রায় প্রতিটা বাজিতেই সমালোচনা এবং বিতর্ক শেষে মাশরাফি জয়ী হন !

আজকের ম্যাচে সাব্বিরের ইনিংসটা দেখলেই বোঝা যায়, সাব্বিরের সাথে সাথে জিতে গেছে ক্যাপ্টেন ফ্যান্টাস্টিক মাশরাফি বিন মর্তুজা !

১২টি চার আর ২টি ছয়ে ১১০ বলে ১০২ রানের ঝলমলে ইনিংস খেলে সাব্বির আজ সবাইকে ভুল প্রমাণিত করে  মাশরাফিকে জিতিয়ে দিয়েছেন।

সাব্বিরের ট্যালেন্ট এবং সামর্থ্য নিয়ে হয়ত কারো কোনো প্রশ্ন নেই। তবে সাব্বিরের প্রতি বিশ্বাস হারিয়েছিলো অনেকেই। কিন্তু মাশরাফি তো সেই লোক, যখন সবাই শেষ দেখে ফেলে, মাশরাফি সেখান থেকেই আবার শুরু করে। এবং সফল হয়। এজন্য মাশরাফি অন্যদের চেয়ে আলাদা…

আমি শুধু বাংলাদেশের দর্শকদের এটাই বলবো, অন্য কাউকে বিশ্বাস করার দরকার নেই। শুধু মাশরাফির উপর বিশ্বাস রাখুন। মাশরাফির সিদ্ধান্তকে সম্মান দিন। বাংলাদেশ ক্রিকেটে মাশরাফির মত নিখুঁত ভবিষ্যত চিন্তা আর কেউ করতে পারেনা। এতকিছু না ভেবে শুধু মাশরাফির উপর ভরসা রাখুন।

মাশরাফি হলেন সেই নেতা, যে পোড়া কয়লা থেকে হীরা খুঁজে আনতে পারেন। সে হীরা নিজের জন্য নয়, খুঁজে আনেন আমাদের জন্য !

মনে রাখতে হবে, মাশরাফি কোনোদিন বাজিতে হারে না। সো, মাশরাফির সিদ্ধান্ত নিয়ে বিতর্ক করে কোনো ফায়দা নেই। এই ব্যাট বলের য‍ুদ্ধ নিয়ে মাশরাফি যা জানেন, আমরা তা কল্পনাও করতে পারিনা…

SHARE