fbpx

কাতালোনিয়া কি স্পেন থেকে আলাদা হতে পারবে?

কাতালান কারা, স্পেনের সাথে তাদের কি সমস্যা এবং কাতালোনিয়া কেন স্পেন থেকে আলাদা হতে চায় তা জানাবো এই প্রতিবেদনে।

 

কাতালোনিয়ার পরিচয়:
স্পেনের উত্তর-পূর্ব অঞ্চলের একটি প্রদেশ কাতালোনিয়া। এটা স্পেনের একটি স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চল। স্পেনের অংশ হওয়া সত্ত্বেও কাতালোনিয়ার আছে আলাদা আঞ্চলিক সংসদ, সরকার ব্যবস্থা ও রাষ্ট্রপতি। কাতালোনিয়ার নিজস্ব ভাষা, সাংস্কৃতিক স্বাতন্ত্র্য এবং অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি কাতালোনিয়াকে স্পেনের অন্যান্য অঞ্চল থেকে আলাদা করেছে। কাতালোনিয়ার আয়তন মাত্র ৩২ হাজার ১০৮ বর্গকিলোমিটার। যা আয়তনে আমাদের চট্টগ্রাম বিভাগের প্রায় সমান। কাতালোনিয়ার জনসংখ্যা প্রায় ৭৬ লাখ, যা সুইজারল্যান্ডের মোট জনসংখ্যার সমান।

 

কাতালোনিয়ার স্বাধীনতার যাত্রা:
এক হাজার বছরেরও পুরো ইতিহাসের সাক্ষী কাতালোনিয়া স্পেনের অত্যন্ত সমৃদ্ধ একটি অঞ্চল। স্প্যানিশ গৃহযুদ্ধের আগে কাতালোনিয়ার ছিলো বেশ শক্তিধর স্বায়ত্তশাসন। কিন্তু জেনারেল ফ্রান্সিসকো ফ্রাঙ্কোর স্বৈরশাসনের সময়, অর্থাৎ ১৯৩৯ থেকে ১৯৭৫ সাল পর্যন্ত নানা ভাবে কাতালোনিয়ার স্বায়ত্তশাসনকে খর্ব করা হয়। কিন্তু ফ্রাঙ্কো মারা যাবার পর কাতালোনিয়ান জাতীয়তাবাদ আবারো উজ্জীবিত হতে শুরু করে। এবং ১৯৭৮ সালে প্রবল আন্দোলনের মুখে স্প্যানিশ কেন্দ্রীয় সরকার কাতালোনিয়ার স্বায়ত্তশাসন ফিরিয়ে দিতে বাধ্য হয়।

সালভাদর দালি আর ফুটবল ক্লাব বার্সেলোনার কারণে কাতালোনিয়া আগে থেকেই বিশ্বব্যাপী পরিচিত। সাম্প্রতিক সময়ে তাদের স্বাধীনতা আন্দোলনের কারণে তারা বেশ আলোচিত হয়ে উঠেছে। ২০১৪ সাল থেকে কাতালোনিয়ার স্বাধীনতা আন্দোলন শুরু হয়। একই বছরে অনুষ্ঠিত এক গণভোটে ৮০ শতাংশ ভোটার স্বাধীনতার পক্ষে রায় দেয়। এরপর ২০১৫ সালের ৯ নভেম্বর কাতালান আইন প্রণেতারা ২০১৭ সালের মধ্যে স্পেন থেকে আলাদা হওয়ার পরিকল্পনা গ্রহণ করে।

স্পেনের সাংবিধানিক আদালত এই পরিকল্পনা বাতিল করে দেয়। ২০১৭ সালের ১ অক্টোবর কাতালোনিয়ায় আরো একটি গণভোট অনুষ্ঠিত হয়। এই ভোটকেও স্পেনের সাংবিধানিক আদালত অবৈধ ঘোষণা করে। গণভোটের ৯০ শতাংশ ভোটার স্বাধীনতার পক্ষে মত প্রকাশ করলেও, কাতালান পার্লামেন্টকে বাতিল ঘোষণা করা হয়।

এর প্রেক্ষিতে কাতালান রাষ্ট্রপতি কার্লোস পুজদেমন খুব শীঘ্রই স্বাধীনতার ঘোষণার আশ্বাস দেন। অবশেষে ২৭ অক্টোবর ২০১৭ তারিখে স্প্যানিশ সিনেটে কাতালোনিয়াকে কেন্দ্রীয় শাসনের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। আর এই একই দিনে কাতালান পার্লামেন্ট তাদের নিজেদের স্বাধীনতার ঘোষণা করে।

 

যে কারণে স্পেন কাতালোনিয়ার স্বাধীনতা চায় না:
কাতালোনিয়ার রাজধানীর বার্সেলোনা স্পেনের দ্বিতীয় জনবহুল শহর। এই ছোট্ট অঞ্চলটি তুলনামূলকভাবে স্পেনের সবচেয়ে শিল্পোন্নত অঞ্চল। স্পেনের মোট জিডিপির ২০ শতাংশ আসে কাতালোনিয়া থেকে। কাতালোনিয়ার এই অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির কারণ হলো বার্সেলোনা ইউরোপীয় ইউনিয়নের একটি গুরুত্বপূর্ণ বাণিজ্য কেন্দ্র। স্পেনে ঘুরতে আসা পর্যটকদের মধ্যে প্রতি চারজনের একজন পর্যটক কাতালোনিয়ায় ভ্রমণ করে। এ কারণে স্পেনের পর্যটনেও কাতালোনিয়ার অনেক অবদান রয়েছে।

স্বাধীনতাকামী কাতালোনিয়া অর্থনৈতিক ও সাংস্কৃতিক ভাবে সমৃদ্ধ হলেও, স্বাধীন-সার্বভৌম রাষ্ট্র হিসেবে গড়ে উঠার ক্ষেত্রে তাদের প্রধান অসুবিধা হলো কাতালোনিয়ার কোন সেনাবাহিনী নেই। অন্যদিকে সামরিক শক্তির দিক থেকে স্পেনের অবস্থান বিশ্বে ৪৮ তম। কাতালোনিয়ায় সামরিক অভিযান চালিয়ে স্পেনের অখণ্ডতা রক্ষা করার ক্ষমতা স্পেনের আছে। নিশ্চিতভাবেই বলা যায় স্পেন তার সোনার ডিম পাড়া হাঁস কাতালোনিয়াকে সহজে হাতছাড়া করতে চাইবে না।

 

আপনার কি মনে হয় কাতালোনিয়ার পক্ষে কি স্বাধীনতা অর্জন করা সম্ভব?