সফলতার যে ১০টি সুত্রে বিশ্বাস করেন ইলন ‍মাস্ক

ইলন মাস্ক

আপনার জীবনের উদ্দেশ্য কি? অদূর ভবিষ্যতে কি করতে চান? কতোটুকু প্রতিষ্ঠিত হতে চান? কি পরিমান সম্পদের মালিক হতে চান? সোজা কথায় বলতে গেলে আপনার স্বপ্নের উচ্চতা কত?

দশটা সাধারণ লোকের স্বপ্নের সীমানা যেখানে শেষ হয়ে যায়, সেখান থেকেই শুরু করেছিলেন একজন কঠোর পরিশ্রমী আর বুদ্ধিমান যুবক। ফলাফল, আজ সে প্রায় ১১ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের মালিক। লোকটার নাম ইলন মাস্ক (Elon Musk)। অপরিচিত মনে হচ্ছে নামটা? কথায় আছে, “বৃক্ষ তোমার নাম কি? ফলে পরিচয়।” অর্থাৎ নাম দিয়ে নয়, বরঞ্চ কর্ম দিয়ে মানুষ বেঁচে থাকে পৃথিবীর বুকে। ইলোন সাহেবের কয়েকটা কর্মের উদাহরন দিলেই হয়তো তাকে চিনতে পারবেন। পেপ্যাল (Paypal), তেসলা মোটর্স (Tesla), স্পেস্-এক্স (SpaceX) নামক কোম্পানিগুলোর মালিক এই ইলন মাস্ক।

মূলত এই তিনটি বিজনেসের মাধ্যমেই সাধারন দশটা মানুষের মধ্যে অসাধারণ সাফল্যপূর্ণ হয়ে উঠেছেন তিনি। এবং এই সফলকাম হওয়ার পথে তিনি মেনে চলেছেন ১০টি সহজ সূত্র। এই সূত্র গুলোই আমাদের আজকের বিষয়বস্তু। চলেন দেখে আসি ইলন মাস্ক এর সফলতার ১০টি সূত্র !

ইলন মাস্ক এর সফলতার ১০টি সূত্র

১. কখনো হাল ছাড়বেন না। অর্থাৎ রবার্ট ব্রুসের সেই মাকড়শার মত ধৈর্য্যশীল হতে হবে।

২. নিজের পছন্দের কাজ করুন, এবং সেই কাজটাকেই প্রোফেশন হিসেবে বেছে নিন।

৩. লোকের কথায় কান দিবেন না। আপনি যখন গতানুগতিক ধারা থেকে বের হয়ে কিছু একটা করতে যাবেন, তখন সমালোচকের অভাব হবে না। এসব সমালোচনা এড়িয়ে চলতে হবে এবং “লোকে কি ভাববে” টাইপের চিন্তাধারা একদম ঝেড়ে ফেলতে হবে।

৪. ঝুঁকি নিতে হবে। সময় এবং সুযোগ বুঝে পর্যপ্ত পরিমান ঝুঁকি নেয়ার সাহস না থাকলে আজীবন সমাজের বাকী ১০ টা লোকের মত এভারেজ হয়েই বেঁচে থাকতে হবে।

৫. এমন কিছু করতে হবে যা সমাজের, দেশের তথা মানবজাতির প্রয়োজন। মানুষের প্রয়োজন, চাহিদা আর আপনার কাজের মধ্যে সমন্বয় ঘটানো খুবই দরকার।

৬. নিজের লক্ষ্যের প্রতি একনিষ্ঠ হতে হবে। যতো ঝড়-ঝঞ্ঝাটই আসুক না কেনো, নিজের ঠিক করা পথে অটল থাকতে হবে।

৭. সমস্যা খুঁজে বের করতে হবে, এবং তার সমাধান করতে হবে। নিজের উপর পরিপূর্ণ আস্থা রাখবেন, কিন্তু নিজেকে নির্ভুল ভাববেন না। আপনার ভুলগুলো অন্য কেউ শনাক্ত করার আগে আপনিই সেগুলো খুঁজে বের করে শুধরে নিন।

৮. আপনি যদি ব্যাবসায়ী হয়ে থাকেন, তাহলে নিজেকে আকর্ষনীয় করে তুলুন। নিজেকে প্রতি খদ্দেরকে আকৃষ্ট করুন, আপনার পন্য অাপানাঅাপনিই বিকোবে।

৯. আপনি যাইই উৎপাদন করেন না কেনো, কিংবা যেই ধরনের সার্ভিসই দেন না কেনো, তা যেনো অন্য সবার চেয়ে বেশি ভালো হয়। পন্য বা সেবার মান যত ভালো হবে, আপনি তত বেশি সফলতা পাবেন।

১০. এবং সবশেষে ইলন সাহেব কঠোর পরিশ্রম করার পরামর্শ দিয়েছেন।

Comments

comments