বিখ্যাত শেফ ‘সল্ট বে’ সম্পর্কিত কয়েকটি তথ্য

সল্ট বে

মাংসের উপর লবণ ছিটিয়ে আলোচনায় ‍আসা ‘সল্ট বে’ এর কথা নিশ্চয়ই সবাই কমবেশি শুনেছেন? সম্প্রতি ইন্টারনেটে আলোচনার শীর্ষে থাকা বিখ্যাত একজন শেফ সল্ট বে। দরিদ্র পরিবারে জন্ম নিয়েও যিনি এখন বিশ্বের সবচেয়ে বেশি আয়কারী একজন শেফ। তাকে নিয়েই আজকে আমরা কথা বলবো !

‘সল্ট বে’ হলেন সেই বিখ্যাত রাঁধুনী, যে মাংস দিয়ে বানানো স্টেক এর উপর নিজস্ব কৌশলে লবণ ছিটিয়ে ২০১৭ সালে ইন্টারনেটের সকল রেকর্ড ভেঙেছিলেন। সল্ট বে এর আসল নাম হলো নুজরেট গকচে । তিনি একজন তুর্কিশ শেফ, যার প্রায় ৩.৯ মিলিয়ন ফলোয়ার রয়েছে ইন্সটাগ্রামে ! মাংসের উপর তার ছুরি চালানো কৌশল এবং নিজস্ব তরিকায় লবণ ছিটানোই তাকে বিখ্যাত করে তুলেছে।

যারা এখনো সল্ট বে’কে চিনেন না, তারা এই আর্টিকেলের শেষে সংযুক্ত ভিডিও দেখে নিতে পারেন।

চলুন জেনে নেই সল্ট বে সম্পর্কে ১৫টি অজানা তথ্য –

  1. বিখ্যাত রাঁধুনী নুজরেট গকচে তুর্কী এবং দুবাই এর ৪টি স্থানে তার বিখ্যাত স্টেক এর রেস্টুরেন্ট খুলেছেন। রেস্টুরেন্টগুলো ইস্তাম্বুল, মারমারাস, আঙ্কারা এবং বারড্রামে অবস্থিত। তার এই রেস্টুরেন্টগুলো থেকে মাসে প্রায় কয়েক মিলিয়ন ডলারের মত আয় হয়।
  2. সল্ট বে নিউইয়র্ক শহরেও নিজস্ব রেস্টুরেন্ট খুলেছেন। জনপ্রিয়তা ও ভক্তদের চাহিদার কথা ম‍াথায় রেখে তিনি এবছরের মধ্যেই লন্ডনে আরেকটি রেস্টুরেন্ট খোলার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। কোনো এক ইন্ট‍ারভিউতে তার যোগাযোগের মাধ্যম সম্পর্কে জানতে চাওয়া হলে সে জানায়, ‘সে ইংরেজিতে কথা বলতে পারে না। কিন্তু তার খাবারের সাহায্যেই সে তার নেটওয়ার্ক আরো বড় করবে।’
  3. সল্ট বে তার লবণ ছিটানোর আলাদা স্টাইলের জন্যই সবচেয়ে বেশ জনপ্রিয়তা লাভ করেন। বিখ্যাত হলিউড তারকা লিওনার্দো ডি ক্যাপ্রিও সামনে বসে নিজ চোখে তার লবণ ছিটানো দেখেছেন এবং মুগ্ধ হয়ে তার প্রশংসাও করেছেন।
  4. ব্রিটিশ ফুটবলার ড্যানি ওয়েলব্যাক তার একটি গোল করার পর সল্ট বে এর মত করে অঙ্গভঙ্গি করেন। ড্যানি ওয়েলব্যাক প্রায় ২৬৫ দিন অসুস্থ ছিলেন এবং কোনো অবস্থাতেই মাঠে আসতে পারেননি। সুস্থ হয়ে মাঠে এসে প্রথম ম্যাচেই গোল দেয়ার পর তিনি সল্ট বে এর সিগনেচার মুভ নকল করেন।
  5. নুজরেট গকচে আবারো ভাইরাল হন ফেব্রুয়ারী মাসে একটি মৃত শুকরকে নিয়ে নৃত্য করে ! যা এক দিনে প্রায় ৪ মিলিয়ন ভিউ পেয়েছিলো। তিনি এই নাচ সম্পর্কে জানান, ‘তিনি নাকি বিশ্বাস করেন, মৃত শুকর নিয়ে নাচার পর তার বানানো বিফ/ল্যাম্ব স্টেকগুলো খেতে আরো দারুণ ও সুস্বাদু হবে।’
  6. একটি বড় ইন্টারভিউতে তার কাছে শাক-সবজির বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে তিনি স্পষ্টভাবে বলে দেন যে, তিনি একজন মাংস বিক্রেতা এবং তিনি শুধু মাংস খেতেই পছন্দ করেন।
  7. জনপ্রিয় অনুষ্ঠান ‘Late, Late show’ এর উপস্থাপক জেমস কোরডেন ও ‘নুজরেট গকচে ওরফে সল্ট বে’ এর একজন খুব বড় ভক্ত। এবং জেমস চিন্তা করেন যে সল্ট বে “Christian grey of meat” খেতাবটি পাওয়ার যোগ্য।
  8. বিখ্যাত রাঁধুনী নুজরেট গকচে সব সময় মাংস বাছাই পর্বে খুবই সচেতন। মাংস বাছাই এর সময় তিনি সবসময় ফ্রেশ এবং সুন্দর মাংসগুলো কিনেন তার রেস্টুরেন্ট এর জন্য।
  9. বিশেষ ব্যক্তিত্ব বেন অ্যাফ্লিক -কে সল্ট বে’র ছবিওয়ালা একটি গেঞ্জি পরা অবস্থায় দেখায় যায়। এছাড়াও রিহানা সহ অনেক জনপ্রিয় তারকা তার নাম ও ছবিওয়ালা গেঞ্জি পরিধান করেন ! যা কিনা আসলেই রহস্যজনক ! এসকল গেঞ্জিগুলো Amazon এ প্রতি পিস প্রায় ৫০ ডলার করে বিক্রি করা হয়। যা আমাদের দেশে প্রায় ৪০০০ টাকা সমপরিমাণ।
  10. একজন অস্ট্রেলিয়ান নাগরিক তার হাতে সল্ট বে এর ট্যাটু আর্ট করায়। তিনি জানান, তিনি একজন মাংস প্রেমিক হওয়ায় সে সল্ট বে এর লবণ ছেটানোর ছবি তার হাতে ট্যাটু করিয়ে আজীবনের জন্য বসিয়ে নেন। এই ছবিটি ইন্সটাগ্রামে লক্ষাধিক মানুষ পছন্দও করেছেন।
  11. সল্ট বে’ কে তার লবণ ছিটানোর কৌশল নিয়ে অনেক অপমান ও বিভিন্ন জায়গায় ট্রল করা হয়। এবং একে কিছু মানুষ লোক দেখানো কৌশল বলে থাকে। কিন্তু এটি মোটেও লোক দেখানো কৌশল নয়। নুজরেট গকচে এর ভাষ্যমতে এটি মাংসের প্রতি একটি আশীর্বাদ স্বরূপ। এবং এই কৌশলটি তাকে সবার থেকে আলাদা করে তুলেছে।
  12. সল্ট বে একটি গরীব পরিবারে জন্মানো সন্তান। তার বাবা খোদাই এর কাজ করতেন। খুবই সামান্য কিছু টাকা উপার্জন করতেন তার বাবা। নুজরেটের পড়ালেখার খরচ তার পরিবার চালাতে না পারায় সে ১৪ বছর বয়সে পড়ালেখার ইতি টানেন এবং কসাই এর কাজ করা শুরু করেন।
  13. তিনি দিনের ২৪ ঘন্টার প্রায় ১৮ ঘন্টা কাজ করেন এবং কোনো প্রকার ছুটি নেন না এ কাজ থেকে। এবং তিনি সবসময় নিজেকে আরো উন্নত করার জন্য চেষ্টায় থাকেন।
  14. আবুধাবির বর্তমান রাজপুত্র শেখ মোহাম্মদ বিন জায়াদ আল মাহান আরব আমিরাতে অবস্থিত সল্ট বে এর রেস্টুরেন্টে রাতের খাবার খান। এবং প্রশংসায় পঞ্চমুখ হয়ে তার সাথে ছবিও তোলেন।
  15. বর্তমান সময়ে সল্ট বে থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে নতুন আগমন ঘটেছে নুডল বে নামে আরেক শেফের। তিনি চীনের একজন রাঁধুনী, যে কিনা নুডলস দিয়ে নৃত্যের মাধ্যমে রান্না করতে পারেন। এবং এই ভিডিও ভাইরাল হওয়ার পর প্রায় ৮০ মিলিয়ন ভিউ পেয়েছিলো।

সল্ট বে অর্থাৎ নুজরেট গকচে এমন একজন ব্যক্তিত্ব, যে তার কাজের পাশাপাশি অনেক বড় একটা পরিবারের সাথেও সময় কাটান। তিনি বলেন , “A man who doesn’t spend time with his family is not really a man.” অর্থাৎ, যে পুরুষ তার পরিবারকে সময় দিতে পারে না সে পুরুষ নামের কলঙ্ক…

আমরা বর্তমান যুগের তথা ইন্টারনেট এর যুগের মানুষ। ইন্টারনেট এর কল্যাণে আমরা এমন অনেক প্রতিভাধর মানুষের পরিচয় পেয়েছি, যা আমাদের ভাবনার বাহিরে। নুজরেট গকচে বা সল্ট বে এমনই একজন ব্যক্তিত্ব। রাঁধুনী বলে কাউকে ছোট করে দেখার কিছু নেই। রান্না অনেকের কাছে একটি শখ। এমনকি পৃথিবীতে এরকম অনেক বিখ্যাত শেফ আছেন, যারা বড় বড় পেশা ছেড়ে রন্ধন পেশায় এসেছেন শুধুমাত্র ‍আত্মিক শান্তিটা পাবার জন্য। ঠিক যেমন আমরা শান্তি পাই তাদের বানানো ইউনিক যত সুস্বাদু খাবারগুলো খেয়ে !

Comments

comments

SHARE