ফিলিপাইন এর মানুষদের ভয়ংকর খাদ্যাভ্যাস !

ফিলিপাইন

কিছু খাবার আছে, যেগুলো দেখলেই কারো জিভে জল এসে যায়, আবার কারো কারো বেলায় ঘৃণায় পেটের ভেতর নাড়িভুড়ি উগড়ে ওঠে। ফিলিপাইন এমন একটা দেশ, এধরণের উদ্ভট খাবারগুলো সবচেয়ে বড় কালেকশন যাদের কাছে পাওয়া যায় ! এই খাবারগুলোকে বলা হয় এক্সোটিক ফুড। কারো কাছে সুস্বাদু, আবার কারো কাছে ঘৃণিত। সে যাই হোক, খাবারগুলো যে আসলেই মজাদার এবং আকর্ষণীয়, সে বিষয়ে আর কোনো সন্দেহ থাকবেনা এই খাবারগুলো সম্পর্কে জানার পর !

ফিলিপাইন এমন একটা দেশ, এরা ভালো মন্দ সবই খায়। তাদের যে খাবারগুলো নিয়ে আমরা ঘৃণায় নাক কুঁচকাবো, তা হয়ত আমাদের জন্য নয়। ওই খাবারগুলোর জন্ম হয়েছে শুধু ফিলিপিনাদের জন্য‍ই। চলুন অল্প কথায় জেনে নেয়া যাক ফিলিপাইনের মানুষদের খাদ্যরুচি ও খাদ্যাভ্যাস…

Strange foods of Philippines

১. পিনিকপিকান না মানাক (Pinikpikan na manok) : খুব অদ্ভুত নিয়মে তৈরি করা হয় এ খাবারটি। একটি জীবন্ত মুরগিকে লাঠি দিয়ে পিটিয়ে মেরে রক্তাক্ত করা হয়। ফিলিপিনাদের বিশ্বাস, এতে করে মুরগির মাংস নরম হয় এবং খেয়ে মজা পাওয়া যায়। মুরগিটিকে পিটিয়ে আধমরা বা পুরোপুরি বেঁহুশ করে ফেলামাত্রই সেটিকে আগুনে ছুঁড়ে ফেলে পশম পুড়িয়ে নেয়া হয়। তারপর চামড়া ছিঁড়ে মুরগির মাংস বের করে মশলা মাখিয়ে সবাই মিলে মজা করে খায়। এই খাবারটি পরিবেশনের সময় সামনে থেকে দেখলে আপনার মনে হবে, আপনি কোনো হরর সিনেমার দৃশ্যপটে চলে এসেছেন !

Dinuguan
Dinuguan

২. দিনুগুয়ান (Dinuguan) : গবাদি পশুর কিডনি, পাকস্থলি, লিভার, চোখ, নাক, কান ও অন্ডকোষ দিয়ে রান্না করা বিশেষ একধরণের খাবারের নাম দিনগুয়ান। এটি গবাদির পশুর রক্ত দিয়ে রান্না করা হয়। বাংলাদেশে আমরা যেমন পানিতে মশলা দিয়ে মাংস রান্না করি, ঠিক একইভাবে এরা মাংসে মশলা মেখে গরম রক্তে ডুবিয়ে রান্না করে। পানির বদলে এখানে ছাগল, ভেড়া বা শুকরের রক্ত ব্যবহার করা হয়। মাংসের চেয়ে রক্তে সবচেয়ে বেশি পরিমাণ পুষ্টি থাকে। তাই খেতে অত্যন্ত সুস্বাদু ও পুষ্টিকর এ খাবারটি ফিলিপাইনে বহুল ব্যবহৃত। বিশ্বের নানা প্রান্ত থেকে প্রতিনিয়ত ট্যুরিস্ট ও খাবারপ্রেমীরা ফিলিপাইনে যায় এই খাবারটি খেয়ে দেখতে !

ঝিঁঝিপোকা
ঝিঁঝিপোকা ভাজা

৩. কামারো (Camaro) : সয়া সস, লবণ ও ভিনেগার দিয়ে মচমচে করে ঝিঁঝিপোকা ভাজা হয়। এই ঝিঁঝিপোকা খেতে খসখসে ও সামান্য মিষ্টি স্বাদের হয়। এই খাবারটির নামই হচ্ছে কামারো। ফিলিপাইনের পামপাঙ্গাতে প্রতিবছর কামারো খাওয়া নিয়ে প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। সেখানে ঐতিহ্যগতভাবে এই খাবারটি পরিবেশন করা হয়। সবচেয়ে বেশি ঝিঁঝিপোকা খাওয়া ব্যক্তি বিজয়ী হয়ে পুরষ্কার জিতে নেয়।

 শুকরের পায়ের কবজি
শুকরের পায়ের কবজি

৪. ক্রিসপি পাটা (Crispy pata) : শুকরের পায়ের পাতা বা পায়ের কবজি দিয়ে এই খাবারটি প্রস্তুত করা হয়। শুকরের পা কেটে পানিতে সেদ্ধ করার পর কড়া করে ভেজে সয়া সস দিয়ে এটি খাওয়া হয়। শুকরের তুলতুলে পায়ের ভেতরের অংশ খেতে অনেকটা মুরগির পায়ের মতই। এই খাবারটিতে আপনি একইসাথে গরুর নেহারী ও মুরগির পায়ের পাতার স্বাদ পাবেন।

কুকুরের মাংস
কুকুরের মাংস ও লিভারের কিমা

৫. আসোসিনা (Asocena) : কুকুরের মাংস ও লিভার একসাথে কুচি কুচি করে কেটে কিমা বানিয়ে লেবুর রসে ভিজিয়ে রাখা হয়। তারপর এটিকে টমেটো সস দিয়ে রান্না করা হয়। আসোসিনা নামের ভয়ংকর এই খাবারটি নিষিদ্ধ হলেও এর বিপুল চাহিদার কারণে এখনো ফিলিপাইনের অনেক রেস্তোরায় গোপনে এটি বিক্রয় করা হয়।

আস্ত শুকরের মাথা
আস্ত শুকরের মাথা

৬. সিসিগ (Sisig) : সিসিগ ডিশটি হচ্ছে আস্ত শুকরের মাথা ! এই খাবারটি রান্নার জন্য শুকর জবাই করে পুরো মাথাটি আলাদা করে গরম পানিতে বয়েল করা হয়। তারপর আগুনে শেঁকে মাথার লোম পুড়িয়ে ফেলা হয়। লোম পুড়ানোর পর পুনরায় পেঁয়াজ ও যাবতীয় মশলা দিয়ে রান্না করে মাথাটি একটি বড় প্লেটে করে পরিবেশন করা হয়।

৭. পাপাইতান (Papaitan) : ছাগলের পাচক রস বা পাকস্থলির ভেতর থাকা পিত দিয়ে এই খাবারটি রান্না করা হয়, যাতে খাওয়ার সময় খাবারটি তিতা লাগে ! এটা ফিলিপাইনের খাবারগুলোর মধ্যে সবচেয়ে জঘন্য স্বাদের খাবার। ফিলিপিনারা নিজেই এটা স্বীকার করে। কিন্তু একইসাথে এটা তাদের পছন্দেরও খাবার !

এছাড়াও বালুট, সাপের ডিম, টামিলক, বেজির চামড়া সহ রোস্ট, ভেড়ার চোখ, বানরের মগজ ভুনা সহ আরো নানান অদ্ভুত খাদ্য গ্রহণের অভ্যাস তো তাদের আছেই ! সব মিলিয়ে ফিলিপাইন আসলেই বড় অদ্ভুত…

Comments

comments

SHARE