ডিম আগে না মুরগি আগে ?

ডিম আগে না মুরগি আগে
Who came first Chicken or the Egg? | Image source : Wordlesstech.com

উত্তর সবারই জানা, তবে সঠিক উত্তরটা অজানা ! কোনো প্রশ্ন নিয়ে এমন দোটানায় বা উভয় সংকটে পরেছেন কখনো? পরার সম্ভাবনাই বেশি কেননা ‘ডিম আগে না মুরগি আগে’ এই ধাঁধাটা খেলার ছলে হোক আর যেভাবেই হোক, ছোটবেলা থেকেই আমাদের মাথার ভেতর গেঁথে গেছে। কিন্তু এর সঠিক উত্তর কেউই সন্দেহাতীত ভাবে দিতে পারেনি ! এধরণের উভয় সংকট প্রশ্নগুলোকে Casualty Dilemma বলা হয়।

চলুন এবার ‘ডিম আগে না মুরগি আগে’ ধা‍ঁধাটির উত্তর খোঁজা যাক ধর্মীয়, বৈজ্ঞানিকঐতিহাসিক ব্যাখ্যায়…

ডিম আগে না মুরগি আগে ?

বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা : বিজ্ঞান বলে একমাত্র মুরগির শরীরের ভিতরে থাকলেই ডিমের অস্তিত্ব থাকতে পারে। ওভোক্লেডিডিন-17 নামক একটি প্রোটিন ডিমের খোসা তৈরি হতে সাহায্য করে। কুসুমের বৃদ্ধি ও নতুন মুরগির জন্ম হতে এই খোসা ও ফ্লুইড খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ডিমের গঠনের জন্য ওসি-17 প্রোটিনের প্রয়োজন আবশ্যক।এই প্রোটিনের ক্যালসিয়াম কার্বোনেটকে ক্যালসাইট ক্রিস্টালে পরিণত করে যা ডিমের শক্ত খোসার গঠন তৈরি করে। অনেক প্রাণীর শরীরের হাড়ের মধ্যেও ক্যালসাইট ক্রিস্টাল পাওয়া যায়। কিন্তু মুরগির শরীর যে কোনও প্রাণীর থেকে এই ক্রিস্টাল বেশি তাড়াতাড়ি তৈরি করে। প্রতি ২৪ ঘণ্টায় ৬ গ্রাম করে ক্যালসাইট ক্রিস্টাল তৈরি হয় মুরগির শরীরে। সুতরাং যেহেতু বৈজ্ঞানিক মতে ডিম ছাড়া মুরগির জন্ম হতে পারেনা এবং ডিম মুরগি ছাড়া পাওয়া সম্ভব নয়, সেহেতু বৈজ্ঞানিকভাবে প্রমাণিত যে মুরগি ডিমের আগে এসেছে।

ঐতিহাসিক ব্যাখ্যা : কয়েক সহস্রাব্দ আগে পৃথিবীতে বাস ছিল মুরগি সদৃশ এক ‘পাখি’-র। প্রাগৌতিহাসিক সেই পাখি জিনগতভাবে অনেকটাই মুরগিদের কাছাকাছি। তবে তা পুরোমাত্রায় মুরগি ছিল না।ধারণা করা হয় যে আগে ‘প্রোটো-চিকেন’ নামের এক পাখি ছিল যেটা প্রোটো এগ নামক ডিম পারত। এটা থেকে মিউটেশন হয়ে একদিন এর প্রোটো এগ ফেটে মুরগি বের হল যে চিকেন ডিম পাড়তে লাগল।

মুরগির সেই প্রাচীনতম পূর্বসূরী এক ডিম পেড়েছিল। পুরুষ সঙ্গী সেই ডিমে বেশ কিছু নতুন বৈশিষ্ট্য যোগ করে। এর পর বেশ কিছু মিউটেশনগত পরিবর্তন ঘটে, যা তখনকার সেই পুরুষ কিংবা মহিলা মুরগির জিন থেকে বেশ কিছুটা পৃথক। নতুন প্রজাতির সেই উৎপন্ন পাখিই হলো আজকের মুরগির আদি পূর্বপুরুষ।

এরপর কয়েক হাজার বছর ধরে পৃথিবীর সঙ্গে মানিয়ে নেওয়ার জন্য মিউটেশনগত রদবদল বহুবার ঘটে। মিউটেশনটি ডিমের মধ্যে ঘটে যাওয়ার ফলে সেই আদি মুরগিটির উৎপত্তি হয়েছিল, তার মানে ডিমটির আগে কোনও মুরগি ছিল না। অর্থাৎ প্রাগৌতিহাসিক মুরগি-সদৃশ এক পাখি ভিন্নধর্মী এক ডিম পাড়ার ফলে উদ্ভব ঘটে আদিতম মুরগির। সেই অনুযায়ী মুরগির আগেই ডিম এসেছে। তাই ঐতিহাসিক তথ্যানুসারে ডিম আগে আর মুরগি পরে।

ধর্মীয় ব্যাখ্যা : আমাদের আদি পিতা হযরত আদম (আঃ)। তাকে আল্লাহ পাক পিতা মাতা ছাড়া সৃষ্টি করছেন এবং যুবক বয়স দান করছেন। তার সন্তান হচ্ছি আমরা, এজন্যই আমাদের বলা হয় আদম সন্তান।এখন সেই সূত্রে অনুসারে এটা প্রমাণিত হয় মানুষের মত সকল জীবের জম্ম মানুষ সৃষ্টির মতই। অর্থাৎ আদমের (আঃ) মাধ্যমে যেমন আমরা ঠিক তেমন মুরগি থেকেই ডিম এবং পরে মুরগির জম্ম। এরকম সব প্রাণী তার পূর্ররূপ নিয়ে পৃথিবীতে এসেছে। সুতরাং ধর্মীয় তথ্যমতে আমরা বলতে পারি ডিম নয়, মুরগি আগে। এছাড়াও, পবিত্র কোরআনের ৫১ নম্বর সূরা যারিয়াতের ৪৯ নম্বর আয়াতে বলা আছে , “আমি প্রত্যেক প্রাণী সৃষ্টি করেছি জোড়ায় জোড়ায়, যাতে তোমরা উপদেশ গ্রহণ কর।” (আল্লাহ্) এতে প্রমাণিত হয় আগে বীজ নয়, প্রাণীকে অর্থাৎ মুরগিকেই আগে পাঠানো হয়েছে।

পরিশেষে

ধর্মীয়, ঐতিহাসিক কিংবা বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা যাই হোক, কখনো যদি কোথাও প্রশ্ন করা হত ‘ডিম আগে না মুরগি আগে’ অথবা ‘মুরগি আগে না ডিম আগে’, তাহলে সর্বপ্রথম ডিম অথবা মুরগি যেটা আগে উচ্চারিত হত, সেটাকেই আমরা সঠিক বলে মেনে নিতাম। তবে আদৌ কি তা সঠিক?

সঠিক উত্তর নিয়ে প্রশ্ন তোলার আগে একবার নিজেই বরং নিজেকে প্রশ্ন করুন, ডিম আগে না মুরগি আগে !

আরো পড়ুনঃ

Comments

comments

SHARE