এপর্যন্ত কতটুকু দুরে যেতে পেরেছে মানবসৃষ্ট মহাকাশযান ?

মহাকাশযান

আধুনিক সভ্যতাকে ঘিরে মানুষ বিশ্বকে চেনার ও বিভিন্ন রহস্য বের করার সাথে সাথেই জ্ঞান লাভ করছে বহির্বিশ্বের নানান ধরনের বিষয়ের উপর।

২০১৭ সালে স্পুটনিক নিক্ষেপ এর ৬০ বছর পূর্তি হয়। একটি ছোট নীল গ্রহ থেকে আমরা মহাকাশের বিশাল দূরত্বের বিভিন্ন গ্রহ উপগ্রহ সম্পর্কে জ্ঞান লাভ করতে পারছি স্যাটেলাইট পাঠানোর মাধ্যমে ।

১৯৪২ সালে ভি-২ রকেট ছিল মানুষের তৈরিকৃত প্রথম বস্তু যা একটি মিসাইল বোমের মত কাজ করেছিল এবং এটি পৃথিবীর এর স্থান হতে অন্যস্থানে নিক্ষেপ করা যেত।

স্পুটনিক ১ ছিল প্রথম স্যাটেলাইট যা প্রায় ২৯০০০ কিলোমিটার/সেকেন্ড গতিতে পৃথিবীর কক্ষপথে ভ্রমন করে। এটি রুশ ইঞ্জিনিয়ার সের্গেই কোরলভ নকশা করেন। এটি ১৯৫৭ সালে ৮ অক্টোবর নিক্ষেপ করা হয়। এর মাধ্যমেই পৃথিবীর সাথে মহাকাশ যোগের সূচনা হয়।

১৯৬৫ সালে পিওনার ৬ নামক স্যাটেলাইট ও পিওনার প্রোগ্রাম এর কয়েকটি স্যাটেলাইট সৌরকক্ষের উদ্দেশ্যে নিক্ষেপ করা হয়। পিওনার ৫ নিক্ষেপ এর সময় দূর্ঘটনার শিকার হয়। পিওনার ৬ থেকে পিওনার ৯ সহ সব গুল স্যাটেলাইট ছিল মহাকাশকে সূক্ষ্মভাবে তদন্ত করার জন্য সৌর কক্ষপথে, ঘূর্ণন স্থিতিশীল, ব্যাটারি চালিত স্যাটেলাইট।

১৯৬৬ সালে লুনা ১০ নামক মহাকাশযান প্রথম চাঁদ এর কক্ষপথে আবর্তন করে। এটি নিক্ষেপ করা হয়েছিল ৩১শে মার্চ । কিন্তু ওই বছরই ৩০শে মে থেকে এই স্যাটেলাইট এর আর কোনো রেডিও সংকেত পাওয়া যায়নি।

১৯৭০ সালে ভেনেরা ৭ শুক্র গ্রহে অবতীর্ণ হয়। এবং এটিই প্রথম মহাকাশযান যা সঠিক ভাবে অন্য গ্রহে অবতীর্ণ হয়। এটি নিক্ষেপ করা হয় ১৭ই আগস্ট এবং গ্রহে পৌছায় ১৫ই ডিসেম্বর। এর দ্বারা শুক্র গ্রহের ভূপৃষ্ঠ পরীক্ষা করা হয়।

১৯৭১ সালের ৩০শে মে মঙ্গল গ্রহের দিকে নিক্ষেপ করা মারিনা ৯ ছিল প্রথম স্যাটেলাইট যা মঙ্গল গ্রহের কক্ষপথ ভ্রমন করে। এবং ১৯৭২ সালের অক্টোবরে ৭৩২৯ টি পরিষ্কার ছবি নিয়ে সফল ভাবে পৃথিবীতে নেমে আসে ।

১৯৭২ সালে পিওনার ১০ নামক স্যাটেলাইট নিক্ষেপ করা হয় শুধুমাত্র বহিঃস্থ সৌর পদ্ধতি পর্যবেক্ষণ করার জন্য। পরবর্তী বছর ১৯৭৩ সালে এটি বৃহস্পতিগ্রহের নিকট থেকে কিছু পরিষ্কার ছবি ক্যামেরাবন্দি করে নেয়।

Voyeger 1 Satellite

১৯৭৭ সালে ভয়েজার ১ ও ভয়েজার ২ মহাকাশের উদ্দেশ্যে নিক্ষেপ করা হয়।

১৯৭৯ সালে পিওনার ১১ নিক্ষেপ করা হয়। এটিই প্রথম মহাকাশযান যা শনিগ্রহের উপর দিয়ে উড়ে যায়।

ভয়েজার ২ প্রথম এবং একমাত্র মহাকাশযান যা ১৯৮৬ সালে ইউরেনাস এর দিকে চলে যায়। ১৯৮৯ সালে ভয়েজার ২ নেপচুনকে পার করে এগোতে থাকে। এবং গ্যালিলিও নামক স্যাটেলাইট নিক্ষেপ করা হয় জুপিটারকে পরিদর্শন করার জন্য।

১৯৯০ সালে ইউলাইসেস নামক স্যাটেলাইট নিক্ষেপ করা হয় সূর্যকে পরীক্ষা করার জন্য। ১৯৯৪ সালে এটি সূর্যকে প্রদক্ষিণ করা শুরু করে।

গ্যালিলিও প্রথম মহাকাশ যান বা স্যাটেলাইট যা সর্বপ্রথম ১৯৯৫ সালে জুপিটারকে প্রদক্ষিণ করে।

১৯৯৭ সালে ক্যাসিনি স্যাটেলাইট নিক্ষেপ করা হয় শনি গ্রহকে প্রদর্শন করার জন্য। ২০০৪ সালে ক্যাসিনি প্রথম শনি গ্রহকে প্রদক্ষিণ করে। এবং একই বছরে একটি বার্তাবাহক নিক্ষেপ করা হয় বুধগ্রহের দিকে।

২০০৬ সালে নতুন কিছু কৃত্রিম উপগ্রহকে প্লুটোর উদ্দেশ্যে পাঠানো হয়, যা ২০১৫ সালে প্লুটোকে পর্যবেক্ষণ করে।

২০১১ সালে বার্তাবাহক সমুহ বুধগ্রহের কক্ষপথে প্রবেশ করে। এবং এখনো বুধগ্রহকে নিয়ে পরীক্ষা চলছে।

২০১২ সালে ভয়েজার ১ সূর্যের কাছাকাছি চলে যায়। এবং এখন অবধি ভয়েজার ১ হলো পৃথিবী হতে নিক্ষেপিত সবচেয়ে দীর্ঘতম দূরত্ব পার করা কৃত্রিম উপগ্রহ। যা পৃথিবী হতে মহাকাশে ১২.৯ বিলিয়ন মাইল অতিক্রম করেছে। এবং নিঃসন্দেহে এটি খুবই হৃদয়গ্রাহী মানব জাতির জন্য ।

Comments

comments