মানুষের শরীরে পশুর রক্ত দিলে কি ঘটতে পারে ?

মানুষের শরীরে পশুর রক্ত

কি ঘটতে পারে, যদি মানুষের শরীরে একটি গরুর রক্ত পুশ করা হয়? নিশ্চয়ই জীবনে একবার হলেও এরকম প্রশ্ন ‍আপনার মাথায় এসেছে ! ধর‍া যাক, কোন একজনের দ্রুত রক্ত লাগবে। রক্ত পাওয়া গেলো না। সেই রক্তের বদলে যদি তার শরীরে মানুষ ব্যতীত অন্য কোনো প্রাণীর রক্ত প্রবেশ করানো হয়, তাহলে কি ঘটতে পারে? এই রক্ত কি কাজে দিবে? লোকটি বেঁচে থাকবে? নাকি মারা যাবে? এই প্রশ্নের উত্তরই আজকে আমরা জানবো…

পৃথিবীতে প্রথম সফল রক্ত সঞ্চালন হয়েছিলো পশুর দেহে। রিচার্ড লওয়ার নামে এক ব্রিটিশ চিকিৎসক ১৬৬৫ সালের মাঝামাঝি সময়ে একদিন দেখতে পেলেন, একটি কুকুর রক্তক্ষরণ হয়ে প্রায় মারা যাচ্ছে। তিনি তখন ওই কুকুরটিকে বাঁচাতে অন্য একটি কুকুরের ধমনী থেকে সরাসরি রক্ত সঞ্চালন করেন। কুকুরটি প্রাণে বেঁচে যায়। এতে চিকিৎসকরাও ভেবে বসলেন, এভাবে রক্ত সঞ্চালনের মাধ্যমে প্রাণ বাঁচানো সম্ভব। তখন তারা ফাউন্টেইন পেনকে সূঁচ হিসেবে ও সিলভার পাইপকে রক্ত সঞ্চালক হিসেবে ব্যবহার করে রক্ত সঞ্চালন শুরু করলেন। কিন্তু ভুল যা করলেন তা হলো, তারা জানতেন না যে, মানুষ ব্যতীত অন্য কোনো প্রজাতির প্রাণীর রক্ত মানুষের দেহে কার্যকর হবেনা। এই রক্ত সঞ্চালন পদ্ধতি ব্যবহার করে তারা একটি অবুঝ প্রাণীর রক্ত মানুষের শরীরে সঞ্চালন করতে শুরু করলেন। ফলস্বরূপ মানুষের মৃত্যু হতে লাগলো ! এই পদ্ধতির প্রয়োগ তখন বন্ধ হয়ে যায়।

১৬৬৭ সালে জিয়ান ব্যাপ্টিস্ট ডেনিস নামে এক চিকিৎসক ১৫ বছরের এক ছেলের দেহে ভেড়ার রক্ত ট্রান্সফার করেন। মজার ব্যাপার হচ্ছে, ভেড়ার শরীর থেকে রক্ত দেয়ার পরও ওই ছেলেটি বেঁচে যায়। কিন্তু এরপর থেকে আর কখনোই কোনো মানুষের দেহে পশুর রক্ত কাজ করেনি। এভাবে কয়েকজন রোগী ম‍ারা যাবার পর চিকিৎসকরা এ ব্যাপারে সতর্ক হয়ে যান। এরপর মানবদেহে অন্য প্রাণীর রক্ত প্রবেশ করার চর্চা আইনগতভাবে নিষিদ্ধ হয়ে যায়।

অবশেষে ১৯০১ সালে কার্ল ল্যান্ডস্টাইনার নামে এক ব্যক্তি ব্লাড গ্রুপিং আবিষ্কার করেন। সেই থেকে আজ অবদি তার ‍আবিষ্কার করা পদ্ধতিটি রক্তের গ্রুপ নির্ণয়ের একমাত্র নির্ধায়ক হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে…

অতএব আমাদের প্রশ্নের শেষ উত্তর এটাই, মানুষের দেহে কেবলমাত্র মানুষের রক্তই প্রবেশ করানো যাবে। অন্য প্রাণীর রক্ত মানবদেহে কাজ করবে না। তবে মজার ব্যাপারটি হচ্ছে, মানুষ চাইলেই অন্য পশুদের জন্য ব্লাড ডোনেট করতে পারবে !

(রক্তদান নিয়ে দীর্ঘদিন যাবৎ প্রজেক্ট ছারপোকা কাজ করে আসছে। ছারপোকা ম্যাগাজিনের নিজস্ব একটি ব্লাডব্যাংক রয়েছে। ফেসবুকে চাইলে আমাদের ব্লাডব্যাংকের পেজে (Charpoka Blood Bank) যুক্ত হতে পারেন। ধন্যবাদ)

Comments

comments

SHARE